Monday 1 July 2019

আইনস্টাইনের কাল - পর্ব-১৬


১৯২২
জার্মানির নতুন চ্যান্সেলর হিসেবে দায়িত্বভার নিয়েছেন উইলহেলম কুনো (Wolhelm Cuno).আইনস্টাইন ইউনিফাইড ফিলড থিওরি বা সমন্বিত ক্ষেত্রতত্ত্বের ওপর তাঁর প্রথম পেপারটি লেখেন এ বছর এরপর সারাজীবন ধরে আইনস্টাইন চেষ্টা করে গেছেন একটি সমন্বিত তত্ত্ব প্রতিষ্ঠার

মেরি কুরি, এইচ এ লরেঞ্জ ও অন্যান্য বিশ্ববিখ্যাত পদার্থবিজ্ঞানীদের সাথে আইনস্টাইনও লিগ অন নেশানস এর ইন্টেলেকচুয়াল কো-অপারেশান কমিশনে যোগ দিলেন

আইনস্টাইনের বৈজ্ঞানিক গবেষণার চেয়ে বেশি সময় কাটছে রাজনৈতিক ও সামাজিক উন্নয়নের কাজে জার্মানির অর্থনৈতিক অবস্থা ভেঙেপড়ার মত হয়েছে, পূর্ব ইউরোপে ও এশিয়ার কিছু অংশে কমিউনিজমের অগ্রগতি সাধিত হচ্ছে অনেক মানুষ বিশেষ করে গরীব মানুষ কমিউনিজমকে তাদের মুক্তির পথ হিসেবে গ্রহণ করছে গরীব মানুষ তাদের দারিদ্র্যের জন্য ইহুদিদের দায়ী করছে, আবার ধনতন্ত্রীরা কমিউনিজমের বিকাশের জন্যও ইহুদিদের দায়ী করছে ইহুদিদের অবস্থা সাংঘাতিক খারাপ এখন এন্টি-সিমেটিজম ছড়িয়ে পড়ছে চারদিকে

এরমধ্যেও জার্মানির সাধারণ মানুষের কাছে আইনস্টাইন খুব প্রিয় আইনস্টাইনের যশের ভাগীদার হতে চায় সবাই আইনস্টাইনও সবার সাথে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক বজায় রাখার পক্ষপাতী তিনি সবার প্রতিই সমান গণতান্ত্রিক তিনি মনে করেন সৎ মানুষের মধ্যে চিন্তাভাবনা ও বিশ্বাসের বিরাট ব্যবধান থাকা সত্ত্বেও পরস্পর শ্রদ্ধাশীল থাকা উচিত জার্মানির নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছেন আইনস্টাইনের ইহুদি বন্ধু ওয়ালথার র্যাথেনাউ (Walther Rathenau). কিন্তু কয়েকদিনের মধ্যেই হিটলারের নাৎসি পার্টির কর্মীদের হাতে খুন হলেন র্যাথেনাউ সরকারী নিরাপত্তাবাহিনী আইনস্টাইনকে নিরাপত্তার কারণে ঘর থেকে বের না হতে পরামর্শ দিলো আইনস্টাইন তাঁর লেকচার ক্যানসেল করে দিলেন ইউনিভার্সিটিতে আইনস্টাইন উপস্থিত থাকলেও অফিসিয়ালি দেখানো হলো তিনি ছুটি নিয়েছেন কেইজার উইলহেলম ইনস্টিটিউটের পরিচালকের পদ থেকে সরে দাঁড়াবার চিন্তাভাবনা করছেন আইনস্টাইন ভাবছেন দেশত্যাগ করবেন কিনা

এসময় সাময়িকভাবে দেশত্যাগ করার একটি সুযোগ এসে গেলো জাপানের কাইজোসা প্রকাশনী সংস্থা আইনস্টাইনকে জাপান সফরের আমন্ত্রণ জানালেন জাপানের বিভিন্ন ইউনিভার্সিটিতে কয়েকটি বক্তৃতা দেবার জন্য তারা আইনস্টাইনকে মোটা অংকের সম্মানী দিতে চাইলো আইনস্টাইন ও এলসা জাপানিজ স্টিমার কিটানো মারুতে চড়ে অক্টোবর মাসে জাপানের উদ্দেশ্যে জার্মান ত্যাগ করলেন যাবার পথে সিংগাপুর,হংকং,শ্রীলংকা ও সাংহাইতে যাত্রা বিরতি করলেন তাঁরা

জাহাজে আবার পেটের যন্ত্রণা দেখা দিলো আইনস্টাইনের জাহাজের ডাক্তার সাধ্যমতো চিকিৎসা করলেন সাংহাই যাবার পথে জাহাজে খবর এলো আইনস্টাইন তাঁর ১৯০৫ সালের ফটো-ইলেকট্রিক ইফেক্ট আবিষ্কারের জন্য ১৯২১ সালের নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন

১৯১০ সাল থেকে শুরু করে প্রতিবছরই আইনস্টাইনের নাম প্রস্তাব করা হয়েছে নোবেল পুরষ্কারের জন্য। তাঁর স্পেশাল রিলেটিভিটি, ব্রাউনিয়ান মোশান, ফটোইলেকট্রিক ইফেক্ট, জেনারেল রিলেটিভিটি- প্রত্যেকটির জন্যই তাঁকে নোবেল পুরষ্কারের জন্য মনোনয়ন দিয়েছেন বিভিন্ন নোবেল পুরষ্কার প্রাপ্ত বিজ্ঞানীরা। কিন্তু নোবেল পুরষ্কার মনোনয়ন কমিটির প্রভাবশালী সদস্য ফিলিপ লেনার্ডের বিরোধিতার কারণে আইনস্টাইনকে কোনবারই নোবেল পুরষ্কার দেয়া যাচ্ছিলো না। কিন্তু আইনস্টাইনকে নোবেল পুরষ্কার দেয়া না হলে নোবেল কমিটির গ্রহণযোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন ওঠার উপক্রম হয়েছে। তাই ১৯২০ সালে আইনস্টাইনের জন্য একটি বিশেষ কমিটি করা হয়। কিন্তু দেখা গেলো সেই কমিটির বিচারকরা আইনস্টাইনের জটিল গাণিতিক গবেষণাপত্রগুলো বুঝতেই পারছেন না। ১৯২১ সালে আইনস্টাইনকে নোবেল পুরষ্কার দিতেই হবে এরকম একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে তাঁর যে তত্ত্বটা কিছুটা সহজে বোঝা যায় সেই ১৯০৫ সালের ফটো-ইলেকট্রিক ইফেক্টের জন্য নোবেল পুরষ্কার দেয়া হয় আইনস্টাইনকে। আইনস্টাইনের প্রধান গবেষণা রিলেটিভিটি নিয়ে যেহেতু এখনো বির্তক চলছে,কট্টর জার্মান জাতীয়তাবাদীরা রিলেটিভিটি তত্ত্বের বিরোধীতা করছেন সেহেতু নোবেল কমিটি রিলেটিভিটি প্রসঙ্গে কোন কথাই উল্লেখ করেননি আইনস্টাইনকে নোবেল পুরষ্কার দেয়ার সময়।

আইনস্টাইনের খ্যাতি ও সম্মান আরো অনেক বেড়ে গেলো। নোবেল পুরষ্কার বিজয়ী আইনস্টাইন বক্তৃতা দিলেন টোকিও,সেনডাই,কায়োটো ও ফুকুওকাতে। জাপানের ওয়াই-এম-সি-এর ক্রিস্টমাস পার্টিতে বেহালা বাজানোর মধ্য দিয়ে শেষ হলো আইনস্টাইনের ছয় সপ্তাহের জাপান সফর। ফেরার পথে তাঁরা প্যালেস্টাইন ও স্পেন ভ্রমণ করলেন।

প্রকাশনা
এবছর প্রকাশিত আইনস্টাইনের নয়টি উল্লেখযোগ্য রচনাঃ

পেপারঃ১০৬ Conditions in Germany. New Republic, সংখ্যা ৩২ (১৯২২), পৃষ্ঠাঃ১৯৭ জার্মানির বর্তমান রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক অবস্থা সম্পর্কে আইনস্টাইনের সাক্ষাৎকার ভিত্তিক প্রতিবেদন

পেপারঃ১০৭ In Memorium Walther Rathenau. Neue Rundschau ,সংখ্যা ৩৩ (১৯২২), দ্বিতীয় খন্ড, পৃষ্ঠাঃ৮১৫-৮১৬ জুনের ২৪ তারিখে দুজন ডানপন্থী সামরিক অফিসারের হাতে নিহত হন জার্মানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওয়ালথার র্যাথেনাউ হিটলারের নাৎসি পার্টির নেতারা ওয়ালথারকে ইহুদি ও কমিউনিস্ট বলে গালাগালি করেছেন এবং তাঁকে খুন করার পর আরো খুনের হুমকি দিয়েছেন আইনস্টাইন তাঁর বন্ধুর স্মরণে এই প্রবন্ধ লেখেন আইনস্টাইন এরকম খুনের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানান

পেপারঃ১০৮ Impact of Science on the Development of Pacifism.Die Friedensbewegung (The Peace Movement),সম্পাদনাঃকুর্ট লেঞ্জ (Kurt Lenz)ও ওয়ালটার ফ্যাবিয়ান (Walter Fabian),প্রকাশকঃ Schwetschke, বার্লিন (১৯২২), পৃষ্ঠাঃ৭৮-৭৯ শান্তিবাদী সংগঠনের স্মারকগ্রন্থে জার্মানির শান্তিবাদীদের পক্ষে আইনস্টাইন এ প্রবন্ধটি লেখেন বৈজ্ঞানিক আবিষ্কার পৃথিবীর যেখানেই হোকনা কেন তার প্রয়োগ আন্তর্জাতিক যেহেতু যুদ্ধাস্ত্রসহ আরো অনেক কিছুই বিজ্ঞানের অবদান, সেহেতু বিজ্ঞানের আবিষ্কার যেন ধ্বংসের কাজে ব্যবহার করা না হয় সে ব্যাপারে গণসচেতনতার আহ্বান জানানো হয়েছে এ প্রবন্ধে সচেতন মানুষের উচিত যুদ্ধবিরোধী সংগঠন তৈরি করে যুদ্ধ এড়ানোর সর্বাত্মক চেষ্টা করা

পেপারঃ১০৯ Four Lectures on the Theory of Relativity. Held at Princeton University in May 1921.প্রকাশকঃভিউয়েগ (Vieweg),জার্মানি(১৯২২) ইংরেজি অনুবাদঃ The meaning of Relativity,অনুবাদকঃএডউইন অ্যাডমস (Edwin P.Adams),প্রকাশকঃ Methuen,লন্ডন (১৯২২) গতবছর প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটি আইনস্টাইনকে দুমাসের জন্য আমন্ত্রণ জানিয়েছিলো কথা ছিলো ওই দুমাসে তিনি বেশ কিছু লেকচার দেবেন সেখানে আইনস্টাইন পনেরো হাজার ডলার দাবী করেছিলেন কিন্তু প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটি পনেরো হাজার ডলার দিতে রাজী হয়নি পরে চারটি লেকচার দেয়ার কথা হয় চারহাজার ডলার সম্মানীর বিনিময়ে প্রিন্সটন ইউনিভার্সিটিতে রিলেটিভিটি থিওরি বিষয়ে যে চারটি লেকচার দিয়েছিলেন আইনস্টাইন, সেগুলোর সংকলন এ বই মূল জার্মান ভাষার ইংরেজি অনুবাদ প্রকাশিত হয়েছে লন্ডনে অনুবাদ করেছেন এডউইন অ্যাডমস

পেপারঃ১১০ Theoretical Observations on the Superconductivity of Metals. In Gedenkboek Kamerlingh Onnes (Commemorative Volume for Kamerlingh Onnes),Ijdo, লিডেন(১৯২২), পৃষ্ঠাঃ৪২৯-৪৩৫ সুপারকন্ডাক্টিভিটির আবিষ্কারক ক্যামারলিংথ ওনিসের স্মরণে প্রকাশিত সংকলনে আইনস্টাইন সুপারকন্ডাক্টিভিটি বিষয়ে তাত্ত্বিক পর্যালোচনা করেন তাঁর এ প্রবন্ধে

পেপারঃ১১১ ExperimentConcerning the Limits of Validity of the Wave Theory. Koniglich Preussische Akademie der Wissenschaften (Berlin), Sitzungsberichte(১৯২২), পৃষ্ঠাঃ৪ প্রুসিয়ান একাডেমি অব সায়েন্সের অধিবেশনে উপস্থাপিত এ প্রবন্ধে তরঙ্গতত্ত্বের সীমাবদ্ধতা পরীক্ষার পদ্ধতি সম্পর্কে আলোচনা করেন আইনস্টাইন

পেপারঃ১১২ Theory of the Propagation of Light in Dispersive Media. Koniglich Preussische Akademie der Wissenschaften (Berlin), Sitzungsberichte(১৯২২),পৃষ্ঠাঃ১৮-২২ প্রুসিয়ান একাডেমি অব সায়েন্সের অধিবেশনে অনিয়মিত মাধ্যমে আলোর গতি ব্যাখ্যা করেন আইনস্টাইন তাঁর এ প্রবন্ধে

পেপারঃ১১৩ Quantum-Theoretical Observation on The Stern-Gerlach Experiment. সহ-লেখকঃপল ইরেনফেস্ট(Paul Ehrenfest) Zeitschrift fur Physik,সংখ্যা ১১(১৯২২), পৃষ্ঠাঃ৩১-৩৪ স্টার্ন-গারল্যাক ইফেক্ট আবিষ্কৃত হয়েছে এবছর স্টার্ন গারল্যাকের পরীক্ষণের ওপর মন্তব্য করে এ পেপারটি লেখেন আইনস্টাইন ও তাঁর ঘনিষ্ঠ বন্ধু পল ইরেনফেস্ট (Paul Ehrenfest)আইনস্টাইন ও ইরেনফেস্ট দেখান যে চৌম্বকক্ষেত্রে পরমাণুর কার্যকলাপ সঠিকভাবে ব্যাখ্যা করতে হলে স্টার্ন-গারল্যাকের ইফেক্টকে অনেক সমস্যা কাটিয়ে উঠতে হবে।

পেপারঃ১১৪ How I Discovered the Theory of Relativity. আইনস্টাইন জাপান ভ্রমণের সময় ডিসেম্বরের ১৪ তারিখে কায়েটো ইউনিভার্সিটিতে এই অনানুষ্ঠানিক বক্তৃতাটি দেন তিনি কীভাবে আপেক্ষিকতা তত্ত্ব আবিষ্কার করলেন তার বর্ণনা দেন সে বক্তৃতায় জাপান সফরের সময় তাঁর অনুবাদক ছিলেন জাপানী পদার্থবিদ ইউন ইশিওয়ারা(Yun Ishiwara) ইশিওয়ারা জার্মান থেকে জাপানি ভাষায় অনুবাদ করে দিতেন আইনস্টাইনের কথা পরে ১৯৩২ সালে ইশিওয়ারার নোট থেকে ইংরেজি ভাষায় অনুবাদ করেন ওয়াই এ ওনো(Y.A.Ono) অনুবাদটি প্রকাশিত হয় ফিজিক্স টুডের আগস্ট সংখ্যায় (পৃষ্ঠাঃ৪৫)

১৯২৩
বছরের শুরুতে আইনস্টাইন ও এলসা জাপান থেকে ফেরার পথে প্যালেস্টাইনে পৌঁছলেন জেরুজালেমে হিব্রু ইউনিভার্সিটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছে ইউনিভার্সিটির প্রথম ভবনের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন করলেন আইনস্টাইন সেখান থেকে আইনস্টাইন দম্পতি গেলেন ফ্রান্সে ফ্রান্স থেকে স্পেনে কিছুদিন কাটিয়ে মার্চের মাঝামাঝি তাঁরা বার্লিনে ফিরলেন
জুলাই মাসে আইনস্টাইন সুইডেনের গোটেবার্গে(Goteburg) গেলেন নোবেল লেকচার দিতে আইনস্টাইন নোবেল পুরষ্কার প্রদান অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না পরে তাঁর জন্য বিশেষ অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়েছে নোবেল পুরষ্কারের টাকা আইনস্টাইনের সাথে চুক্তি অনুযায়ী মিলেইভা পাবেন, তবে টাকাটা কীভাবে খরচ করা হবে তা নিয়ে মিলেইভার সাথে আইনস্টাইনের মতবিরোধ দেখা দিলো শেষপর্যন্ত সিদ্ধান্ত হলো জুরিখে তিনটি বড় বাড়ি কিনে ভাড়া দেয়া হবে ভাড়ার টাকায় মিলেইভা ও ছেলেদের খরচ মিটে যাবে এসময় আইনস্টাইন তাঁর কিশোর ছেলেদের সাথে দক্ষিণ জার্মানিতে কয়েকদিন ছুটি কাটালেন 

লিগ অব নেশানস এর ইন্টেলেকচুয়াল কো-অপারেশান কমিশন থেকে পদত্যাগ করলেন আইনস্টাইন কারণ তাঁর মনে হয়েছে এই কমিশনের উদ্দেশ্য বাস্তবায়নের শক্তি বা ইচ্ছা কোনটাই নেই এই কমিশনের তাছাড়া তিনি যে ধরণের শান্তিকামী মানুষ, লিগ অব নেশানসের নীতির সাথে তা মেলে না জার্মানির অর্থনৈতিক মন্দা আস্তে আস্তে কেটে যাচ্ছে

হিটলারের নাৎসি পার্টি মিউনিখে একটি অভ্যুত্থান ঘটানোর চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়েছে হিটলারকে গ্রেফতার করা হয়েছে, এবং সরকারের বিরুদ্ধে ষড়যন্ত্রের অপরাধে বিচারে তাঁকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়েছে জার্মানি থেকে ফ্যাসিজম ইটালিতেও ছড়িয়ে পড়তে শুরু করেছে

প্রকাশনাঃ
এবছর প্রকাশিত আইনস্টাইনের উল্লেখযোগ্য সাতটি রচনাঃ

পেপারঃ১১৫ My Impressions of Palestine. New Palestine, সংখ্যা ৪ (১৯২৩), পৃষ্ঠাঃ৩৪১ প্যালেস্টাইনে ইহুদিদের ভবিষ্যত স্বাধীন রাষ্ট্র ভ্রমণ করে এসে তাঁর প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন আইনস্টাইন তিনি তখনো প্যালেস্টাইনের আরবদের নিয়ে কোন সমস্যা হতে পারে ভাবেননি তিনি ধারণা করেছেন আরব ও ইহুদিরা পরস্পর শান্তিতে বাস করতে পারবে সেখানে আইনস্টাইন নতুন রাষ্ট্রের জন্য প্রধান সমস্যা হিসেবে চিহ্নিত করেন স্যানিটেশান, ম্যালেরিয়া ও রাষ্ট্রীয় অর্থনীতিকে তবে পাঁচ-ছয় বছর পরেই আইনস্টাইন বুঝতে পারেন আরবদের অধিকার প্রশ্নে সেখানে একটি বিরাট সমস্যা দেখা দিতে পারে

পেপারঃ১১৬ On the General Theory of Relativity. Koniglich Preussische Akademie der Wissenschaften (Berlin),Sitzungsberichte (১৯২৩), পৃষ্ঠাঃ৩২-৩৮ প্রুসিয়ান একাডেমি অব সায়েনসের অধিবেশনে আইনস্টাইন এ গবেষণাপত্রটি উপস্থাপন করেন জেনারেল রিলেটিভিটি ব্যাখ্যা করা হয়েছে এ গবেষণাপত্রে

পেপারঃ১১৭ Theory of Relativity. Nature, সংখ্যা ১১২ (১৯২৩), পৃষ্ঠাঃ২৫৩ থিওরি অব রিলেটিভিটি প্রসঙ্গে আইনস্টাইন সহজ ভাষায় এই প্রবন্ধটি লিখেছিলেন ফরাসি ভাষায় প্রকাশিত The Bulletin of the Societe francaise de philosophie জার্নালের জন্য, সংখ্যা ২২ (১৯২৩), পৃষ্ঠাঃ৯৭-১১২ পরে গবেষণাপত্রটির ইংরেজি অনুবাদ প্রকাশিত হয় নেচার পত্রিকায়

পেপারঃ১১৮ Theory of the Affine Field.Nature,সংখ্যা ১১২ (১৯২৩), পৃষ্ঠাঃ৪৪৮-৪৪৯ সায়েন্টিফিক জার্নাল নেচারে প্রকাশিত এই গবেষণাপত্রে আইনস্টাইন স্পেস-টাইমের সমান্তরাল স্থানান্তরের (Parallel displacement)বর্ণনা দেন

পেপারঃ১১৯ Fundamental Ideas and Problems of the Theory of Relativity. Nobelstiftelsen: Les Prix Nobel en 1921-1922. Imprimerie Royale,স্টকহোম (১৯২৩) জুলাই মাসের ১১ তারিখে আইনস্টাইন সুইডেনের গুটেবার্গে এই নোবেল লেকচারটি দেন নোবেল প্রাইজ দেবার অনুষ্ঠানে আইনস্টাইন ফর্মাল নোবেল লেকচার দেননি এই বিশেষ লেকচারে তিনি যে গবেষণার জন্য নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন সে ফটো-ইলেকট্রিক ইফেক্ট সম্পর্কে না বলে তাঁর প্রিয় বিষয় থিওরি অব রিলেটিভিটি বিষয়ে বলেছেন

পেপারঃ১২০ Does Field Theory Offer Possibilities for the Solution of Quantum Problems? Koniglich Preussische Akademie der Wissenschaften (Berlin). Sitzungsberichte (1923), পৃষ্ঠাঃ৩৫৯-৩৬৪ প্রুসিয়ান একাডেমি অব সায়েন্সের অধিবেশনে উপস্থাপিত এই প্রবন্ধে আইনস্টাইন কোয়ান্টাম থিওরির ভবিষ্যত সমস্যা ও সম্ভাবনা নিয়ে আলোচনা করেন প্রায় পঁচিশ বছর ধরে কোয়ান্টাম তত্ত্বের অনেক সাফল্য থাকা সত্ত্বেও এখনো পর্যন্ত এই তত্ত্বের কোন সুনির্দিষ্ট যৌক্তিক ভিত্তি তৈরি হয়নি আইনস্টাইন এ তত্ত্বের বিদ্যমান অসংগতি ও সমস্যাগুলোর সমাধান করা যায় কীভাবে তার ব্যাখ্যা দিয়েছেন

পেপারঃ১২১ On the Quantum Theory of the Radiative Equilibrium.সহলেখকঃপল ইরেনফেস্ট (Paul Ehrenfest). Zeitschrift fur Physik, সংখ্যা ১৯ (১৯২৩),পৃষ্ঠাঃ৩০১-৩০৬ আইনস্টাইন ও পল ইরেনফেস্ট এ গবেষণাপত্রে ইলেকট্রন বিকিরণের কোয়ান্টাম থিওরি সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন

১৯২৪
এলসার বড়মেয়ে আইলসের বিয়ে হয়ে গেলো সাংবাদিক রুডলফ কাইজারের (Rudolf Kayser)সাথে আইলসের বিয়ে হওয়াতে আইনস্টাইন আইনগত ভাবে শ্বশুর হয়ে গেলেন আইলস বিয়ের আগ পর্যন্ত আইনস্টাইনের সেক্রেটারির কাজ করেছেন এখন তাঁর বিয়ের পর আইনস্টাইনের সেক্রেটারির কাজ করেছেন এখন তাঁর বিয়ের পর আইনস্টাইনের সেক্রেটারি হয়ে এলেন বেটি নিউম্যান(Betty Neumann) তেইশ বছর বয়সী সুন্দরী নিউম্যান আইনস্টাইনের এক বন্ধুর মেয়ে কিন্তু আইনস্টাইন এ তরুণীর প্রতি আসক্ত হয়ে পড়লেন অবশ্য একবছরের মধ্যেই সে আসক্তি চলে যায়

এলসার সাথে আইনস্টাইনের বিয়ের পর তাঁদের সম্পর্কটা অনেকটাই বন্ধুর মতো এলসা তাঁর স্বামীকে বিধিনিষেধের বেড়াজালে বেঁধে রাখতে চাননা কারণ তিনি বুঝতে পেরেছেন আইনস্টাইনকে জোর করে বাঁধা যাবে না তাই তিনি আইনস্টাইনের নারীসঙ্গপ্রিয়তাকে কিছুটা প্রশ্রয়ও দেন কারণ তিনি মনে করেন আইনস্টাইন কখনোই তাঁকে ছেড়ে যাবেন না আইনস্টাইনের মত বিখ্যাত মানুষের স্ত্রী হতে পারার গৌরবটাই বড় করে দেখেন এলসা

এবছর আইনস্টাইন জানতে পারলেন যে তিনি এখনো জার্মানির নাগরিক। তিনি অবাক হয়ে গেলেন। জার্মানির নাগরিকত্ব তিনি বর্জন করেছিলেন অনেক বছর আগে। এরপর আর নাগরিকত্বের আবেদন করেননি। তবে কীভাবে হলো? আইনস্টাইনকে নোবেল পুরষ্কার দেয়ার সময় নোবেল কমিটি তাঁকে জার্মানির নাগরিক হিসেবে বিবেচনা করেছেন। পরে কমিটি যখন জানতে পারে তিনি জার্মানির নাগরিক নন, তখন প্রুসিয়ান একাডেমি অব সায়েন্স জানায় যে প্রুসিয়ান একডেমির সদস্যপদ দেয়ার সাথে সাথে জার্মানির নাগরিকত্বও দেয়া হয়েছে আইনস্টাইনকে। আইনস্টাইন এখন আর তা নিয়ে হৈ চৈ করলেন না। তাঁর সুইজারল্যান্ডের নাগরিকত্ব বহাল থাকলেই তিনি খুশি।
লিগ অব নেশানস এর ইন্টেলেকচুয়াল কমিশন থেকে পদত্যাগ করার ব্যাপারটি গভীরভাবে ভেবে দেখলেন আইনস্টাইন। এখন তাঁর মনে হচ্ছে কমিশনে থাকলেই বরং বেশি কাজ করতে পারবেন। তিনি আবার যোগ দিলেন কমিশনে। বিশ্বব্যাপী পদার্থবিজ্ঞান ও রসায়নের টার্মগুলোর একটি সার্বজনীন রূপ দেয়ার জন্য কাজ করে যাচ্ছেন তিনি। এ সম্পর্কিত একটি ইন্টেলেকচুয়াল কমিশনের একটি মিটিং হলো জেনেভায়। আইনস্টাইন যোগ দিলেন সে সভায়।

বার্লিনের কাছে পটসড্যাম(Potsdam) শহরে আইনস্টাইনের নামে একটি ল্যাবোরেটরি ও টাওয়ার অবজারভেটরি চালু হয়েছে এবছর। আধুনিক স্থাপত্যের নিদর্শন এই আইনস্টাইন টাওয়ার

মে মাসের মাঝা মাঝি সময় থেকে জার্মানির রাজনৈতিক অবস্থা কিছুটা স্থিতিশীল হয়েছে বলে মনে হচ্ছে আইনস্টাইনের। হিটলারকে পাঁচ বছরের কারাদন্ড দেয়া হয়েছিলো কিন্তু জেলে হিটলারের ভালো ব্যবহারের পুরষ্কার স্বরূপ হিটলারকে মুক্তি দেয়া হলো মাত্র আট মাসের মাথায় এই আটমাস জেলে থাকার সময় হিটলার একটি বই লিখেছেন আমার সংগ্রাম (Mein Kampf-My Struggle) নামে এই বইতে হিটলার ইচ্ছেমত গালিগালাজ করেছেন ইহুদি আর সার্বদের তিনি গণতন্ত্র জার্মান জাতির জন্য অভিশাপ ব্যক্ত করে পৃথিবীতে জাররাম জাতির ভবিষ্যৎ আধিপত্য বিস্তারের ইচ্ছা ও কৌশলের বর্ণনা দেন

এবছরের শুরুতে ভারতীয় পদার্থবিজ্ঞানীরা সত্যেন্দ্রনাথ বসুর কাছ থেকে দুটো গবেষণাপত্র পান আইনস্টাইন বিকিরণের সংখ্যাতত্ত্বের বিষয়ে এই পেপার দুটো পড়ে আইনস্টাইন মুগ্ধ হয়ে গেলেন সত্যেন বসুর প্রথম পেপারটি ছিলোঃ Plancks Law and the Light-quantum  Hypothesis সত্যেন বসু এই পেপারটি ইউরোপের ফিলোসফিক্যাল ম্যাগাজিন(Philosophical Magazine) জার্নালে প্রকাশ করার চেষ্টা করেছিলেন কিন্তু কোন অনুকুল সাড়া না পেয়ে পেপারটির একটি কপি সরাসরি আইনস্টাইনের কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন এর পরপরই সত্যেন বসু আরো একটি পেপার লেখেন, Thermal Equilibrium in the Radiation Field in the Presence of Matter.আইনস্টাইন এই পেপারটির সাথে সত্যেন বসুর একটি চিঠিও পান সত্যেন বসু আইনস্টাইনকে অনুরোধ করেছেন পেপার দুটো জার্মান ভাষায় অনুবাদের ব্যবস্থা করে জার্মানির কোন জার্নালে প্রকাশের ব্যবস্থা করার জন্য আইনস্টাইন নিজেই পেপার দুটো ইংরেজি থেকে জার্মানিতে অনুবাদ করে জার্নালে পাঠিয়ে দিলেন প্রকাশের জন্য সত্যেন বসুকে লিখলেন আইনস্টাইন, আমি আপনার পেপার অনুবাদ করেছি এবং Zeitschrift fur Physikএ প্রকাশের জন্য পাঠিয়ে দিয়েছি আপনার কাজ পদার্থবিজ্ঞানকে এগিয়ে নিয়ে যাবার একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ আমি খুব খুশি হয়েছি আপনার পেপার পড়ে আপনি আমার গবেষণার ব্যাপারে আপনার যে আপত্তিগুলো উল্লেখ করেছেন, আমি দেখেছি তা ঠিক নয় সে যাই হোক, তাতে কিছু যায় আসেনা এটি আসলেই একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ

আইনস্টাইন সত্যেন বসুর সংখ্যাতত্ত্ব নিয়ে কাজ করলেন সত্যেন বসু একধরণের নতুন কণার ধারণা দিয়েছেন- যা ভরহীন হওয়াতে যে কোন স্বাধীন সংখ্যায় হতে পারে এবং সবগুলো কণাই একই রকম ধর্ম প্রদর্শন করবে সত্যেন বসুর নাম অনুসারে এই কণাগুলোর নাম দেয়া হলো বোসন আইনস্টাইন বোসন নিয়ে গবেষণা করে দেখলেন যে একটি নির্দিষ্ট তাপমাত্রার নিচে সবগুলো বোসন একই শক্তিস্তরে থাকবে এবং সে শক্তিস্তর হলো সর্বনিম্ম শক্তিস্তর(Ground-state energy level) পরে এই অবস্থার নাম হয়েছে বোস-আইনস্টাইন কন্ডেনসেট(Bose-Einstein Condensate) বা বি--সি ২০০১ সালে পরীক্ষাগারে বোস-আইনস্টাইন কনডেনসেট সৃষ্টি করে নোবেল পুরষ্কার পেয়েছেন উলফগ্যাং কেটেরেল(Wolfgang Ketterle), এরিক কর্নেল(Eric Cornell) ও কার্ল উইম্যান(Carl Wieman)  

প্রকাশনা
এ বছর প্রকাশিত আইনস্টাইনের পাঁচটি উল্লেখযোগ্য রচনাঃ

পেপারঃ১২২ The Compton Experiment.Berliner Tageblatt,২০ এপ্রিল ১৯২৪ দুবছর আগে ১৯২২ সালে আর্থার কম্পটন(Arthur Compton) কম্পটন-ইফেক্ট আবিষ্কার করেন আইনস্টাইন এ পেপারে কম্পটনের পরীক্ষণ বিষয়ে আলোচনা করেছেন কম্পটন পরীক্ষা করে দেখেছেন যে, একটি মুক্ত ইলেকট্রনের ওপর এক্স-রের বিক্ষেপণ ঘটালে বিক্ষিপ্ত এক্স-রের তরঙ্গদৈর্ঘ্য বিক্ষেপণের আগের তরঙ্গদৈর্ঘ্যের চেয়ে বেড়ে যায়, অর্থাৎ বিক্ষিপ্ত কোয়ান্টার শক্তি কমে যায় এই ঘটনা থেকে তড়িৎচুম্বকীয় তরঙ্গের কণা আকারে থাকার সম্ভাবনা নিশ্চিত করে কম্পটন তাঁর আবিষ্কারের জন্য ১৯২৭ সালে নোবেল পুরষ্কার পান 

পেপারঃ১২৩ On the One-Hundredth Anniversary of Lord Kelvins Birth. Naturwissenschaften, সংখ্যা ১২(১৯২৪), পৃষ্ঠাঃ৬০১-৬০২ নিউটনিয়ান মেকানিক্সের ওপর ভিত্তি করেই লর্ড কেলভিন উইলিয়াম থমসনের সমস্ত গবেষণা আইনস্টাইন লর্ড কেলভিনের কাজ নিয়ে আলোচনা করার পাশাপাশি কেলভিনের কাজ থেকে প্রেরণা নিয়ে অন্য যাঁরা কাজ করেছেন- যেমন জেমস ক্লার্ক ম্যাক্সওয়েল- তাঁদের কাজ নিয়েও আলোচনা করেন আইনস্টাইন লর্ড কেলভিনের ব্যক্তিগত জীবন নিয়ে আলোচনা করার বদলে তাঁর উল্লেখযোগ্য গবেষণার ওপরই গুরুত্ব দেন

পেপারঃ১২৪ Quantum Theory of Monatomic Ideal Gases. Koniglich preussische Akademie der Wissenschaften(Berlin), Sitzungsberichte (1924),পৃষ্ঠাঃ২৬১-২৬৭ প্রুসিয়ান একাডেমি অব সায়েন্সের জার্নালে প্রকাশিত এ গবেষণাপত্রে আইনস্টাইন তাপীয় বিকিরণের প্রকৃতি ও ডিজেনারেট স্টেট গ্যাসের বিকিরণের প্রকৃতির মধ্যে সামঞ্জস্য খুঁজে পান তিনি সত্যেন্দ্রনাথ বসুর একপরমাণুক গ্যাসের ধারণাকে আরো বিস্তৃত করে বোস-আইনস্টাইন ইফেক্ট প্রতিষ্ঠা করেন

পেপারঃ১২৫ On the Ether. Schweizerische Naturforschende Gesellschaft.Verhandlungen, সংখ্যা ১০৫ (১৯২৪), ২য় খন্ড, পৃষ্ঠাঃ৮৫-৯৩ ইথারের অস্তিত্বের ধারণা একেবারে মুছে যায়নি এখনো আইনস্টাইন এই ইথারের ধারণার যে আর প্রয়োজন নেই তা ব্যাখ্যা করেছেন এ গবেষণাপত্রে

পেপারঃ১২৬ On the Theory of Radiometric Forces. Zeitschrift fur Physik, সংখ্যা ২৭ (১৯২৪), পৃষ্ঠাঃ১- রেডিওমেট্রিক ফোর্স-(যেটা দিয়ে তেজস্ক্রিয় বিকিরণের মাত্রা নিরূপণ করা হয়) সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে আইনস্টাইনের এ গবেষণাপত্রে




No comments:

Post a Comment

Latest Post

Memories of My Father - Part 4

  This is my first photo taken with my father. At that time, I had just moved up to ninth grade, my sister was studying for her honors, and ...

Popular Posts